Price:৳ 700, $ 20, £ 15
ISBN: 978 984 20 0505-3
Type: Hard
Page: 400
In Stock:Not Avilable

বিশ্ব সাহিত্যে বিশ্বনবী

আমি আপনার আলোচনাকে সমুচ্চ করেছি। -আল কুরআন, সূরা ইনশিরাহ : ৪ ‘মুহাম্মদ’ নামটির অর্থ প্রশংসিত, স্রষ্টা ও সমগ্র সৃষ্টির যিনি প্রশংসা লাভে ধন্য হয়েছেন। তাঁর নাম ও কর্মের সার্থকতার তুলনা তিনি নিজেই। অসভ্য-বর্বর আরব জগতের তীব্র বিরোধিতার মাঝে এসে মাত্র দুই দশকের মধ্যে তিনি তাদের আমূল পরিবর্তনের বরপুরুষ হিসেবে আবির্ভূত হন। যেই আরব সমাজ ছিল তাঁর জানের দুশমন, তারাই অতি অল্প সময় বাদে তাঁর ত্যাগী অনুবর্তী হিসেবে নিজের সর্বাধিক প্রিয় জিনিস লোভনীয় জীবন বিলিয়ে দিতে দু’বার চিন্তা করত না তাঁর জন্যে। এমনই চরিত্র, এমনই জীবন তাঁর যে, আজো সমগ্র দুনিয়ার সকল দিগন্তে এ নাম উচ্চারিত হয়। কেউ ভক্তি ভালোবাসায়, কেউ নিন্দায় উচ্চারণ করে সেই নাম। নিন্দা যেন প্রকারান্তরে তাঁর মহিমাই বহুগুণ বাড়িয়ে দেয়। একজন অর্বাচীন নিন্দা করে তো দশজন প্রজ্ঞাবান ঘোষণা করে তাঁর অমিয় শান, অপরূপ মহিমা। আল্লাহর বাণী-আমি আপনার স্মরণ ও আলোচনাকে সমুন্নত করেছি-বারবার এটাই সত্য হয়ে ধরা দেয় ইতিহাসের বিচারে। ঈসায়ী সপ্তম শতাব্দীতে ইসলামের আবির্ভাব ছিল বিশ্ব-ইতিহাসে সর্বাপেক্ষা বিস্ময়কর ঘটনা। অল্প সময়-মাত্র ২৩ বছরে নবীজীবনের ইসলামের মূল কা-ারী হযরত মুহাম্মদ (সা) যে অবিস্মরণীয় সাফল্য লাভ করেছেন, তা যেকোনো বিচারে অনন্যসাধারণ অর্জন। হাজার বছরের ব্যবধানে তাঁর আদর্শের স্থায়িত্ব ও বিশ্বসভ্যতায় তাঁর দুর্দমনীয় প্রভাব, যুগোপযোগিতায় তাঁর সমাধান, আধুনিকতায় তাঁর ব্যাখ্যা, বিজ্ঞানে তাঁর অর্জন, প্রজ্ঞায় তাঁর অধিকার, হৃদয়ে হৃদয়ে তাঁর আসন কোনোটাই ম্লান হয়ে যায়নি। কী মহিমা ছিল তাঁর জীবনে, কীভাবে তিনি এত শক্তিশালী, কেন তিনি আজো আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে তা চলমান গবেষণার বিষয়। বিশ্বব্যাপী তাঁকে নিয়ে যে উৎসাহ ও আলোচনা-তার ধারে কাছেও নেই অন্য কোনো ঐতিহাসিক ব্যক্তিত্ব। বিশ্ব ইতিহাস ও সাহিত্যালোচনায় স্বাভাবিকভাবেই হযরত মুহাম্মদ (সা) বহুমাত্রিকতার সাথে বিরাজমান। সেরকমই বাংলা ভাষায় আরেকটি প্রয়াস বিশ্বসাহিত্যে বিশ্বনবী।

Read More

Authors Details

Muhammad Nurul Amin / মুহাম্মদ নূরুল আমীন

মুহাম্মদ নূরুল আমীন। জন্ম ১৯৭৩ সালের ৭ ডিসেম্বর, চট্টগ্রাম জেলার বোয়ালখালী থানার অন্তর্গত উত্তর গোমদ-ী গ্রামে। ২০০০ সালে তিনি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন চট্টগ্রাম সরকারি কলেজ থেকে মাস্টার্স ডিগ্রি লাভ করেন। শিক্ষকতা দিয়ে কর্মজীবন শুরু। তারপর ঢাকার একটি জাতীয় দৈনিকে স্বল্পকালীন সাংবাদিকতা। বর্তমানে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডে কর্মরত। মাধ্যমিক স্তরে পড়াশোনাকালে তিনি লেখালেখির জগতের সাথে পরিচিত হন। দেশ-বিদেশের প্রথম শ্রেণির পত্র-পত্রিকায় তাঁর প্রকাশিত প্রবন্ধ-নিবন্ধের সংখ্যা তিন শতাধিক। অনেক গুরুত্বপূর্ণ সংকলন ও স্মারক গ্রন্থে তাঁর লেখা স্থান পেয়েছে। প্রকাশিত প্রথম গ্রন্থ বিজ্ঞানে মুসলমানদের অবদান (২০০২) পাঠকমহলে সমাদৃত হয়। ২০০৩ সালের অক্টোবরে এর দ্বিতীয় সংস্করণ প্রকাশিত হয়। বিশ্বসাহিত্যে বিশ্বনবী এবং বাংলাদেশের জাতীয় নিদর্শনাবলী তাঁর দ্বিতীয় ও তৃতীয় গ্রন্থ। পরবর্তী গ্রন্থের মধ্যে রয়েছে স্পেনে মুসলিম সভ্যতা এবং বিশ্বসেরা মুসলিম বিজ্ঞানী।